ঝিনাইদহে দু বিঘা মরিচ ক্ষেতে বিষ :কৃষকের স্বপ্নভঙ্গ

 

ঝিনাইদহ অফিস: চাষের জন্য নিজের বলতে এক শতক জমিও নেই। প্রথম দিকে পরের ক্ষেতে দিনমজুরি করতাম। কিছুদিন আগে দু বিঘা জমি বর্গা নিয়ে স্বামী-স্ত্রী মিলে পরিশ্রম করে মরিচগাছ লাগিয়েছিলাম। কিন্তু দুর্বৃত্তদের তা সহ্য হলো না। আমার ওই মরিচক্ষেতে বিষ দিয়ে সব গাছ মেরে ফেললো। এ কেমন শত্রুতা?

কাঁদতে কাঁদতে কথাগুলো বলছিলেন ঝিনাইদহ সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়নের মাধবপুর গ্রামের সেকেন্দার শাহ (৫০) নামের এক ভূমিহীন কৃষক। এ সময় তার পাশে বসে থাকা স্ত্রী মরিয়ম খাতুনের চোখ বেয়েও পানি ঝরছিলো। রাতের আঁধারে কে বা কারা ওই দু বিঘা জমির মরিচক্ষেতে বিষ দিয়ে সব গাছ নষ্ট করে ফেলেছে। এতে তাদের প্রায় আড়াই লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

সেকেন্দার জানান, তাদের চাষযোগ্য কোনো জমিজমা নেই। পাঁচ শতক জমিতে চাটাইয়ের তৈরি বেড়া দেয়া ঘরে থাকেন। তার এক ছেলে এক মেয়ে। দুজনেরই বিয়ে হয়েছে। পরের খেতে দিনমজুরি করেই তাদের বিয়ে দিয়েছেন। তিনি বলেন, ২৫-৩০ বছর পরের ক্ষেতে কাজ করেছেন। এ বছর তিনি গান্না গ্রামের আমজাদ আলীর কাছ থেকে বছরে ১৬ হাজার টাকার চুক্তিতে দু বিঘা জমি বর্গা নিয়ে মরিচ চাষ করেন। গত মার্চ মাসের মাঝামাঝি সময়ে ওই জমিতে মরিচের চারা লাগান। স্বামী-স্ত্রী মিলে শুরু করেন পরিচর্যা। ছেলে আরিফও তাদের মাঠে সহযোগিতা করতেন। ক্ষেতে লক্ষাধিক টাকা ব্যয় করেছেন। এর মধ্যে ৬০ হাজার টাকা ধার করে এনেছেন। স্বপ্ন দেখেছিলেন লাভের টাকায় জমি কিনে চাষাবাদ করবেন।

মরিয়ম বেগম বলেন, তাদের কোনো শত্রু নেই। কারা তাদের এতো বড় ক্ষতি করলো, তা বুঝতে পারছেন না।ঝিনাইদহ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

Leave a comment

Your email address will not be published.