চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদ থেকে বরাদ্দকৃত আলমডাঙ্গার হৈদারপুর গ্রামের ঈদগা ও কবরস্থানের ৪ লাখ টাকা দুনীর্তির অভিযোগ

স্টাফ রির্পোটার: চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদ থেকে বরাদ্দকৃত আলমডাঙ্গার হৈদারপুর গ্রামের ঈদগা ও কবরস্থানে নামে দেয়া ৪ লাখ টাকা কাজ না করে তুলে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঈদগা ও কবরস্থানের নামে ভুয়া কমিটি বানিয়ে একজন সরকারি কর্মচারীকে পিআইসি বানিয়ে নামমাত্র কাজ করে টাকা তুলে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে গতকাল জেলা পরিষদের তদন্ত টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে বলে অভিযোগসূত্রে জানা গেছে।
আলমডাঙ্গার জেহালা ইউনিয়নের হৈদারপুর গ্রামের ঈদগা ও কবরস্থানে জেলা পরিষদ থেকে দুটি স্থানে দুই লাখ করে ৪ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়। কিন্তু ঈদগা নামমাত্র মাটি ভরার ও রাস্তায় হেরিং করে টাকা তুলে নেই। গ্রামবাসীর পক্ষে ঈদগার সভাপতি সিরাজুল অভিযোগ করে জানান, ইউপি চেয়ারম্যান কিছুদিন আগে গ্রামের এক সালিসে বলেন, স্থানীয় এক চেয়ারম্যান নিজ খরচে ঈদগার রাস্তা হেরিং বন্ড করে দেবেন। গ্রামের লোকজন সেটাই জানতো। গতকাল জেলা পরিষদ থেকে তদন্ত টিম ঘটনাস্থলে গেলে গ্রামবাসী জানতে পারে, দুটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে জেলা পরিষদের সদস্য খলিলুর রহমানের মাধ্যমে আলমডাঙ্গা নির্বাচন অফিসের সরকারি কর্মচারী ইদ্রীস আলীকে পিআইসি করে মোট ৪ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যেখানে নামমাত্র ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকার কাজ করা হয়েছে। এলাকাবাসী প্রশ্ন তুলেছে, জেলা পরিষদ ধর্ম প্রতিষ্ঠানের বরাদ্দ দিলেও কেন স্থানীয় এক চেয়ারম্যানের কথা বলা হয়েছে? তাহলে কি টাকা তুলে নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নেয়ার জন্য? এলাকাবাসী তদন্তপূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা নিতে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published.