চুয়াডাঙ্গায় বৃদ্ধা অন্ধ বিধবা হিরা বেগমের ভাগ্যে জোটেনি ভাতা’র কার্ড

 

পাঁচমাইল প্রতিনিধি: জন্মগত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বৃদ্ধা হিরা বেগমের ভাগ্যে একটি ভাতা’র কার্ড জোটেনি। হতভাগ্য বিধবা হিরা বেগম বয়সের ভারে নুয়ে পড়েছেন। দ্বারে দ্বারে ভিক্ষা মেনে খান তিনি। কিন্তু ইউপি মেম্বার-চেয়ারম্যানের কাছে বার বার ধরনা দিয়েও জীবনে একটি ভাতা’র কার্ড পাননি। কবে ওই কার্ড তার ভাগ্যে জুটবে তাও জানেন না হিরা বেগম।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বসুভাণ্ডারদহ গ্রামের মৃত মিনাজ  উদ্দীনের স্ত্রী হিরা বেগম (৬৫) জন্মগতভাবে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী। স্বামীর মৃত্যুর পর দ্বারে দ্বারে ভিক্ষা করে একমাত্র ছেলে মাদার আলীকে বড় করে তোলেন। সেও বিয়ের পর মাকে ছেড়ে শ্বশুরবাড়ি যেয়ে ঘরজামাই আছে। মায়ের খোঁজ-খবর রাখে না সে। হিরা বেগমের মাথা গোঁজার ঠাঁইটুকুও নেই। তিনি গ্রামের ওয়াজেদ আলীর বাড়ির আশ্রিত। হিরা বেগম কেঁদে কেঁদে বলেন, ‘দুনিয়ায় আমার কেউ নেই। অন্ধ মানুষ চলতে ফিরতে সমস্যা হয়। তাছাড়া বয়স হয়েছে। ভিক্ষা করতে বেরিয়ে হাঁপিয়ে যাই।’ তিনি অভিযোগ করেন, মেম্বার-চেয়ারম্যানদের কাছে অনেক আবেদন নিবেদন করেছি, কিন্তু আমার নামে কোনো কার্ড বরাদ্দ হয়নি। এ ব্যাপারে শঙ্করচন্দ্র ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমান বলেন, ‘হিরা বেগমের মায়ের নামে একটি কার্ড বরাদ্দ আছে। এই কারণে একই পরিবারে দুটি কার্ড দেয়া সম্ভব হয়নি।’

 

ছবি: অন্ধ বিধবা হিরা বেগম।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *