আলমডাঙ্গার আসাননগরে মায়ের রেখে যাওয়া শিশুকন্যাকে নিয়ে দাদা-দাদি বিপাকে

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: আলমডাঙ্গা আসাননগর গ্রামে রেখে যাওয়া ১ বছরের শিশুকন্যাকে ফেলে রেখে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে তার দাদা-দাদি। গতকাল বিকেলে আসাননগরের রাজিবের স্ত্রী তার চাচাশ্বশুর আনোয়ার হোসেনের বাড়ি সামনে আলমডাঙ্গা-কুষ্টিয়া সড়কে কালিদাসপুর বাস স্ট্যান্ডপাড়ায় রাস্তার ওপর শিশু সন্তানকে রেখে চলে যান।
জানা গেছে, উপজেলার আসাননগর গ্রামের জান্টুর ছেলে রাজিব দুই বছর আগে উপজেলার কামালপুর গ্রামের মুসা মেম্বারের মেয়ে শিলার সাথে বিয়ে করেন। শিলার ইতঃপূর্বে একবার বিয়ে হয়েছিলো। বিয়ের পর থেকে তাদের সংসারে পারিবারিক কলহ লেগেই থাকতো। বিয়ের এক বছর পর রাজিব-শিলা দম্পত্তির সংসারে এক কন্যা সন্তান জন্মগ্রহণ করে। গত ১৮ জুলাই শিলা ১ বছরের শিশুকন্যাকে নিয়ে রাতের আঁধারে শ্বশুর বাড়ি থেকে পালিয়ে নড়াইলে চলে যান। মেয়ে নাতনিকে নিয়ে চলে যাওয়ায় মুসা মেম্বার রাজিব ও তার বাবা জান্টুর নামে আলমডাঙ্গা থানায় অভিযোগ করেন। ২ দিন পরে আলমডাঙ্গা থানা পুলিশ নড়াইল থেকে ওই শিলাকে উদ্ধার করে। ২১ জুলাই সকালে মুসা মেম্বারের হাতে শিলাকে বুঝিয়ে দেয়া হয়।
এ সময় শিলা বলেন, আমি রাজিবের বাড়িতে আর যাবো না। আমার দেনমোহরের ১ লাখ টাকা দিলে আমি রাজিবকে তালাক দিয়ে দেবো। গতকাল দুপুরে শিলা তার ১ বছরের কন্যা সন্তানকে জান্টুর বড় ভাই আলমডাঙ্গা-কুষ্টিয়া সড়কের কালিদাসপুর বাস স্ট্যান্ডের বাড়ির সামনে রেখে চলে যাওয়ার সময় আনোয়ারের স্ত্রী টের পান। এ সময় শিলা দৌড়ে পালিয়ে যান। পরে তারা ১ বছরের শিশু কন্যা রোজাকে তার দাদা-দাদির কাছে দিয়ে আসেন। বর্তমানে ১ বছরের শিশুকন্যা রোজাকে নিয়ে জান্টু ও তার স্ত্রী বিপাকে পড়েছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *