আদালতের স্থগিতাদেশ ও পুলিশের নির্দেশ উপেক্ষা করে আলমডাঙ্গার দরিদ্র চা দোকানির ভিটেবাড়ি দখল করে নেয়ার অভিযোগ

 

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: আদালতের স্থগিতাদেশ ও পুলিশের নিষেধ উপেক্ষা করে আলমডাঙ্গার পারকুলা গ্রামের দরিদ্র চা দোকানি মহিউদ্দীনের ভিটেবাড়ি জোরপূর্বক দখল করে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে পার্শ্ববর্তী পাইকপাড়া গ্রামের লিয়াকতের বিরুদ্ধে। আদালতও পুলিশের নির্দেশ অমান্য করে বিবাদমান জমি দখলের উদ্দেশে নির্মিত বেড়া তুলে নেয়ার নির্দেশ দেয়ার প্রায় ২০ দিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত তা অপসারণ করা হয়নি।এলাকার কিছু রাজনৈতিক নেতা ও ফাঁড়ি পুলিশের আইসিকে হাত করে লিয়াকত আলী ওই অপকর্ম করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

জানাগেছে, আলমডাঙ্গা উপজেলার পারকুলা গ্রামের মহিউদ্দীনের শ্বশুর একই গ্রামের মৃত ছামেদ আলীর মৃত্যুর পর মহিউদ্দীনের স্ত্রী আয়েশা খাতুন উত্তরাধিকারসূত্রে ১ একর ৫৭ শতক জমি পান। ওয়ারেশসূত্রে প্রাপ্ত স্ত্রীর ওই জমিতে প্রায় ৪০/৪৫ বছর ধরে বসবাস করে আসছেন মহিউদ্দীনের পরিবার। এতো বছর ধরে তিনি ওই ভিটেবাড়ির জমি স্ত্রীর নামে খারিজ করে নিয়মমাফিক খাজনা পরিশোধ করে আসছেন। পার্শ্ববর্তী গ্রাম পাইকপাড়ার ওমর আলীর ছেলে লিয়াকত আলী ওই সম্পতি মহিউদ্দীনের চাচা শ্বশুরের নিকট থেকে কিনে নিয়েছেন দাবি করে দু বছর আগে তা দখল করার চেষ্টা করেন।সে সময় এ গোলযোগের কারণে আদালতে মামলা করা হয়। সে মামলা এখন চলমান। এরই মধ্যে লিয়াকত আলী নতুন করে ওই ভিটেবাড়ি দখলের ষড়যন্ত্র শুরু করলে মহিউদ্দীনের আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত ওই সম্পত্তি দখলের বিরুদ্ধে স্থগিতাদেশ দেন।আদালতের স্থগিতাদেশ অমান্য করে লিয়াকত আলী গত ১৬ এপ্রিল বুধবার সদলবলে দখল করে তারকাঁটা দিয়ে ঘিরে রেখেছেন।

মহিউদ্দীন অভিযোগ করে বলেছেন, এলাকার কয়েকজন রাজনৈতিক নেতা ও পাইকপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির আইসি এএসআই মসিয়ার রহমানের সহযোগিতায় লিয়াকত আলী আদালতের নির্দেশ অমান্য করে তার ভিটেবাড়ি দখল করেছে। বিষয়টি জানতে পেরে আলমডাঙ্গা থানা অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম গত রোববার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ওই সময় তিনি লিয়াকত আলীকে ২৪ ঘণ্টা সময় বেধে দেন আদালতের নির্দেশের প্রতি শ্রদ্ধা দেখিয়ে তারকাঁটা খুলে নিয়ে মহিউদ্দীনের ভিটেবাড়ি অবমুক্ত করে দিতে। লিয়াকত আলীকে ওই অপকর্মে সহযোগিতা করার জন্য সে সময় ওসি এএসআই মশিয়ার রহমানকেও বকাবকি করেন। গতকাল ওসির দেয়া আল্টিমেটামের ১৫ দিন ইতোমধ্যে শেষ হয়ে গেলেও দখল ছেড়ে দেননি লিয়াকত।

Leave a comment

Your email address will not be published.