অষ্টমীতে ছিলো দর্শনার্থীদের ভিড় : আজ মহানবমী

স্টাফ রিপোর্টার: অষ্টমীবিহীত ও কুমারী পূজার মধ্যদিয়ে গতকাল উদযাপিত হয়েছে শারদীয় দুর্গোৎসবের তৃতীয় দিনের অনুষ্ঠানাদি। তবে চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরে কুমারী পূজার খোঁজ পাওয়া যায়নি। সারাদেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নিরাপত্তার মধ্যদিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়। আজ মহানবমী। সকালে নবমীবিহীত পূজার মধ্যদিয়ে দিনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। পূজা শেষে অঞ্জলি, প্রসাদ বিতরণ ও সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হবে ভোগ আরতি।

চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক হাজি আলী আজগার টগরের দেয়া অনুদান গতকাল দামুড়হুদা ও জীবননগরের ৩৬টি পূজা উদযাপন কমিটির নিকট হস্তান্তর করা হয়। এদিকে আলমডাঙ্গার বেশ কয়েকটি পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করেন চুয়ডাঙ্গা জেলা প্রশাসক দোলোয়ার হোসাইন, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল আমিন ও আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনজুমান আরাসহ সংশ্লিষ্টরা।

আলমডাঙ্গা ব্যুরো জানিয়েছে, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক দেলোয়ার হোসাইন গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় আলমডাঙ্গার স্টেশনপাড়াস্থ হরিজন সম্প্রদায়ের পূজা মণ্ডপসহ শহরের বিভিন্ন মণ্ডপ পরিদর্শন করেন। এ সময় তার সাথে ছিলেন- অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মল্লিক সাঈদ মাহবুব, আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনজুমান আরা, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল আমিন, জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ডা. অমল কুমার বিশ্বাস, আওয়ামী লীগ নেতা ইন্দ্রজিৎ দেব শর্মা, স্টেশনপাড়া পূজামণ্ডপের তত্ত্বাবধায়ক জয়দেব বিশ্বাস, তাপস ব্যাদ, রাজকুমার ব্যাদ, বুদ্ধদেব, রনি, রাজিব, প্রকাশ ব্যাদ প্রমুখ। এ সময় জেলা প্রশাসক পূজামণ্ডপের শৃঙ্খলা ও সম্প্রীতিময় পরিবেশ দেখে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন।

জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, এ উপজেলার ১৮টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা উদযাপিত হচ্ছে। গতকাল শনিবার অষ্টমীর দিন পূজামণ্ডপগুলোতে ছিলো হিন্দু নারী-পুরুষের উপচে পড়া ভিড়।

জীবননগর পৌর এলাকাসহ উপজেলার উথলী ইউনিয়নের মনোহরপুর, শিয়ালমারী, দেহাটি, শিংনগর, আন্দুলবাড়িয়া ইউনিয়নের আন্দুলবাড়িয়া, বাজদিয়া ও নিশ্চিন্তপুর, রায়পুর ইউনিয়নের রায়পুর, বালিহুদা ও রায়পুর কামারপাড়া, হাসাদাহ ইউনিয়নের হাসাদাহ ও হাসাদাহ মাঝেরপাড়া, বাঁকা ইউনিয়নের সুটিয়া ও সীমান্ত ইউনিয়নে শাখারিয়া ও সুবলপুরে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে সাজ সাজ রব বিরাজ করছে। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে পূজামণ্ডপগুলোতে আরতি ও পূজা অর্চনা।

দর্শনা অফিস জানিয়েছে, শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপনের লক্ষ্যে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজগার টগর মন্দির পরিচালনা পর্ষদের নেতৃবৃন্দের হাতে আর্থিক অনুদানের ব্যবস্থা করেছেন। বিশেষ কাজে এমপি টগর এলাকার বাইরে অবস্থান করায় গতকাল শনিবার ২০টি মন্দিরে তার পক্ষে অনুদান প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন- দামুড়হুদা উপজেলা আ.লীগের সভাপতি সিরাজুল আলম ঝন্টু, যুগ্মসম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান জাকারিয়া আলম, আ.লীগ নেতা শহিদুল ইসলাম, আবু সাঈদ খোকন, বিল্লাল হোসেন, যুবলীগ নেতা আশরাফুল আলম বাবু, আব্দুস সালাম ভুট্টা, রেজাউল হক প্রমুখ।

মহেশপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, মহাষ্টমীর মধ্যদিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের মহোৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় মহেশপুরের শ্রী শ্রী রাধা বল্বব মন্দিরে দেবীর সন্ধিপূজা আর কুমারী পূজার মধ্যদিয়ে দিনটি পালন করে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। কুমারী বালিকাকে সাজিয়ে দেবীজ্ঞানে তাকে পূজা করে ভক্তরা। এবার মহেশপুর উপজেলায় ৩৫টি পূজামণ্ডপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন ওই সমস্ত পূজামণ্ডপে পূজা অর্চনা করে উৎসব পালন করছে।

মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, মেহেরপুরে শারদীয় দুর্গাপূজা আনন্দ-উৎসবের মধ্যদিয়ে পালিত হচ্ছে। পূজাকে কেন্দ্র করে হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝে আনন্দ বয়ে যাচ্ছে। তাই তো পূজাতলার মেলায় কিশোর-কিশোরী আর শিশুদের ভিড় লেগেই থাকছে। এছাড়া পূজামণ্ডপ ও তার আশেপাশে যেকোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ঠেকাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

এ বছর মেহেরপুরের তিন উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের ৩৪টি পূজামণ্ডপে দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবার জেলার কোনো পূজামণ্ডপে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি বলে জানালেন জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সিনিয়র সহসভাপতি অ্যাড. পল্লব ভট্টাচার্য। পূজামণ্ডপ বিভিন্ন সময়ে পরিদর্শন করেন- মেহেরপুরের জেলা পরিষদ প্রশাসক অ্যাড. মিয়াজান আলী, জেলা প্রশাসক মাহমুদ হোসেন, পুলিশ সুপার একেএম নাহিদুল ইসলামসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ।

মুজিবনগর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, মুজিবনগর উপজেলার মহাজনপুর ইউনিয়নে শারদীয় দুর্গাপূজা পরিদর্শন করলেন জেলা পরিষদের প্রশাসক জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মিয়াজান আলী। গতকাল শনিবার বিকেলে মুজিবনগর উপজেলার মহাজনপুরে, কমরপুর পূজামণ্ডপ, মহাজনপুর পূজামণ্ডপ, যতারপুর পূজামণ্ডপ পরিদর্শন  করেন। তিনি হিন্দু সম্প্রদায়ের বিভিন্ন পেশার মানুষের খোঁজখবর নেন ও কুশল বিনিময় করে। এ সময় সফরসঙ্গী ছিলেন- জেলা পূজামণ্ডপ উদযাপন কমিটির সহসভাপতি অ্যাড. পল্লভ ভট্টাচার্য তরুণ, মুজিবনগর উপজেলার পূজা কমিটির সভাপতি ডা. সুকুমার কর্মকার, সম্পাদক প্রদীপ, মহাজনপুর ইউনিয়ন আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসিফ ইকবাল বিদ্যুৎ, যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম  প্রমুখ।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *