অপ্রাপ্ত বয়সে বর চিনতে ভুল করায় আলমডাঙ্গায় উত্তেজনা

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: বিয়ের দাবিতে আলমডাঙ্গার সোনারতরী কিন্ডার গার্টেনের ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছাত্রী সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের স্কুলভ্যানচালক সুজন দাসের বাড়িতে গিয়ে ওঠে। এ নিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে পালিয়ে গেছে প্রেমিক প্রবর সুজন পাল।

জানা গেছে, আলমডাঙ্গা ক্যানেলপাড়ার ভগিরত দাসের ছেলে সুজন দাস (২০) আলমডাঙ্গা শহরে অবস্থিত সোনারতরী নামক একটা কিন্ডার গার্টেনে চাকরি করে। তিনি কিন্ডার গার্টেনটির শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের ভ্যানগাড়ি চালক। সম্প্রতি সুজন দাস সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। তাকে ফুঁসলিয়ে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যায়। এরই এক পর্যায়ে গতকাল ১ আগস্ট বিকেলে প্রেমিকা সুজন দাশের বাড়িতে গিয়ে হাজির হয়। সে সময় প্রতিবেশীদের প্রশ্নবাণের তোপে পড়ে প্রেমিকা সুজন দাসের সাথে তার প্রেমের সম্পর্কের কথা স্বীকার করে। এমনকি বিভিন্ন স্থানে তাদের একান্তে সময় উপভোগের কথাও স্বীকার করে বিয়ের দাবি তোলে।

নিম্নবর্ণের ছেলে সুজন দাস ও ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্কের বিষয়টি জানাজানি হলে সন্ধ্যায় সুজন দাসের বাড়ির সামনে এলাকার মানুষ উপস্থিত হয়। অবস্থা বেগতিক দেখে সটকে পড়ে সুজন দাস। সন্ধ্যার পর প্রেমিকার মা-বাবা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মেয়েকে নিয়ে বাড়ি চলে যান।

এই নিয়ে উত্তেজনা বাড়তে থাকলে কাউন্সিলর জহুরুল ইসলাম স্বপন ও সাবেক কাউন্সিলর শাহীন রেজা উপস্থিত হয়ে সকলকে শান্ত করেন। ছেলে-মেয়ে উভয়ই অল্প বয়স্ক। তাদের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে সকলকে সংযত আচরণ করতে অনুরোধ করেন। বিষয়টি ঘিরে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি যাতে নষ্ট না হয়, সে বিষয়টিও সকলকে লক্ষ্য রেখে আচরণ করতে অনুরোধ করেন। দুই কাউন্সিলরের বক্তব্যের পর পরিবেশ শান্ত হয়।

Leave a comment

Your email address will not be published.